AjkerCrime

শিক্ষার্থীদের নতুন পাঠ্যবইয়ে দেয়া হচ্ছে অ্যাসাইনমেন্ট

ডেস্ক ॥ করোনা পরিস্থিতির সন্তোষজনক পরিবর্তন না হলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিশেষত স্কুল খোলা হচ্ছেনা-একথা ইতোমধ্যেই পরিষ্কার করেছে সরকার। তবে এরই মধ্যে নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হওয়ায় শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার মধ্যে আবদ্ধ রাখতে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের পাঠদানের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে নতুন পাঠ্যবইয়েও আলোকে অ্যাসাইনমেন্ট দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অন্তত আগামী তিন মান নতুন পাঠ্যবইয়ের আলোকে অ্যাসাইনমেন্ট দেয়ার কথা বলছেন জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) কর্মকর্তারা।

কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে। এনসিটিবি নির্ধারিত সিলেবাসের আওতায় শিক্ষার্থীদের শিখন মূল্যায়নের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট তৈরি করে ইতোমধ্যেই শিক্ষা অধিদফতরে পাঠিয়েছে। বাংলা, ইরেজি, গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, বিজ্ঞান, কৃষিশিক্ষা ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞান-এ সাতটি বিষয়ের প্রণীত সিলেবাস ও অ্যাসাইনমেন্টের হার্ড এবং সফট কপি অধিদফতরে পাঠিয়েছে এনসিটিবি। পর্যায়ক্রমে অন্য বিষয়গুলোর সিলেবাস ও অ্যাসাইনমেন্ট পাঠানো হবে। একইসঙ্গে নতুন শিক্ষাবর্ষে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা চালিয়ে নিতে ফের চালু হবে সংসদ টিভি, রেডিওসহ অনলাইন ক্লাস।

এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলছিলেন, করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কবে খুলছে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। তবে এ বন্ধ সময়ের মধ্যে আমরা এপ্রিল পর্যন্ত একটি পাঠ পরিকল্পনা তৈরি করেছি। সেটির ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, নতুন শিক্ষাবর্ষের আগামী ১২ এপ্রিল পর্যন্ত অ্যাসাইনমেন্ট দিতে মাউশিতে পাঠানো হয়েছে। মাউশি এটি পরিচালনা করবে। অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে শিক্ষকরা অ্যাসাইনমেন্ট গ্রহণ করবেন এবং শিক্ষার্থীর উন্নতি বা অবনতি মূল্যায়ন করতে পারবেন।

Skip to toolbar